শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪

শিরোনাম

আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ন্ত্রণ বিলে সই করলেন বাইডেন

সোমবার, জুন ২৭, ২০২২

প্রিন্ট করুন

চলমান নিউইয়র্ক ডেস্ক: সিনেটে বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) পাস হওয়া আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ন্ত্রণ বিলটি আইনে পরিণত হওয়ার জন্য প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সইয়ের অপেক্ষায় ছিল। শনিবার (২৫ জুন) সেই বিলে সই করলেন বাইডেন। ফলে বিলটি আইনে পরিণত হল। খবর সিএনএনের।

বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) বিলটি পাস হওয়ার পর এর পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্টের এক রায়ে বলা হয়, ‘মার্কিনিদের জনসমক্ষে আগ্নেয়াস্ত্র বহন করার মৌলিক অধিকার রয়েছে।’

রায়ের আগে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি বলেন, ‘সংবিধানের দ্বিতীয় ও চতুর্দশ সংশোধনী অনুযায়ী একজন ব্যক্তির বাড়ির বাইরে আত্মরক্ষার জন্য একটি লাইসেন্সধারী অস্ত্র বহন করার অধিকার রয়েছে।’

এ দিকে, এ রায়ের তীব্র সমালোচনা করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘এ আদেশ সংবিধানের সাথে সাংঘর্ষিক।’ এটি সাধারণ মানুষকে আরো ঝুঁকির মুখে ফেলবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

বিলটিতে যেসব প্রস্তাব করা হয়েছে, তার মধ্যে রয়েছে, ২১ বছরের কম বয়সীদের কাছে অস্ত্র বিক্রির ক্ষেত্রে পারিবারিক ইতিহাস যাচাই, মানসিক স্বাস্থ্যবিষয়ক কর্মসূচি ও স্কুলের নিরাপত্তার জন্য দেড় কোটি ডলারের কেন্দ্রীয় তহবিল বরাদ্দ, পারিবারিক সহিংসতার ইতিহাস থাকলে অস্ত্র বিক্রি না করা।

জো বাইডেন বিলটিতে আরো কঠোর বিধিনিষেধ যুক্ত করতে চেয়েছিলেন। তবে সেগুলো যুক্ত না হওয়ার পরও তিনি কংগ্রেসে দ্রুত বিলটির ওপর ভোটাভুটি অনুষ্ঠানের আহবান জানিয়েছিলেন।

গত কয়েক সপ্তাহ ধরে বন্দুক হামলার জেরে বার বার আক্রান্ত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন রাজ্য। এলোপাতাড়ি গুলির শিকার হয়েছেন নিরীহ মানুষ। এমনকি, স্কুলের ছোট্ট শিশুরাও রেহাই পায় নি বন্দুক হামলার হাত থেকে। বার বার এ ধরনের হামলায় অধিকাংশ মার্কিন নাগরিকই আঙুল তুলেছেন যুক্তরাষ্ট্রের আগ্নেয়াস্ত্র নীতির দিকে। এ পরিস্থিতিতে বহু প্রতীক্ষিত আগ্নেয়াস্ত্র বিলটি প্রেসিডেন্টের অনুমোদন পাওয়া তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছে দেশটির বিশিষ্টজনেরা।

ইউরোপে গুরুত্বপূর্ণ কূটনৈতিক বৈঠকে অংশ নিতে যাওয়ার আগে বিলটিতে সই করলেন বাইডেন। বিলটিতে সই করার পর তিনি জানান, যদিও এ বিল আমি যা চেয়েছিলাম, তার সবটা করতে পারবে না। কিন্তু এতে সেই পদক্ষেপগুলো রয়েছে, যার কথা আমি দীর্ঘ সময় ধরে বলে আসছি। এটি জীবন বাঁচাবে।

তিনি আরো বলেন, ‘আমি জানি, এখনো অনেক কাজ বাকি। কিন্তু আমি আশা ছাড়ছি না। আজকের দিনটি একটি ঐতিহাসিক দিন। এ সময় আগামী ১১ জুলাই একটি অনুষ্ঠানের কথাও ঘোষণা করেছেন তিনি। ওই অনুষ্ঠানে বন্দুক হামলায় নিহত পরিবারের সদস্যরা যোগ দেবেন। থাকবেন আইনজীবীরাও।

দেশটিতে ১৮ বছর হলেই বন্দুক কিনতে পারেন সাধারণ মানুষ। সেই নিয়ম বদলের জন্য গত কয়েক সপ্তাহ ধরে রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ করেছেন মার্কিন নাগরিকরা। দ্রুত এ নিয়ম পালটে দিক সরকার, এ দাবিতে মানুষ মিছিল করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন প্রান্তে। কিন্তু মনে করা হচ্ছিল, এ আইন পাস হওয়ার সম্ভাবনা অনেক কম। কেননা রিপাবলিকানরা এর বিরোধিতা করবে।

যুক্তরাষ্ট্রে মহামারিতে রূপ নিয়েছে বন্দুক সহিংসতা। সম্প্রতি বন্দুক হামলার সবচেয়ে ভয়ংকর ঘটনাটি ঘটে মে মাসে। গত ২৪ মে টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের উভালদে শহরের একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বন্দুক হামলায় প্রাণ হারান ১৯ শিশু শিক্ষার্থীসহ অন্তত ২১ জন।

সিএন/এমএ

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন