সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪

শিরোনাম

আমেরিকা-মেক্সিকো সীমান্তে বিধিনিষেধ বহালের আহ্বান

বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ৯, ২০২৩

প্রিন্ট করুন

যুক্তরাষ্ট্রের যে কটা স্থান দিয়ে প্রতিবছর অভিভাসনপ্রাত্যাসীরা সীমান্ত পার হন তার মধ্যে আমেরিকা-মেক্সিকো সীমান্ত অন্যতম। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে মাইলের পর মাইল পাড়ি দিয়ে এই সীমান্তে জড়ো হন আশ্রয়প্রার্থীরা। আর অতিরক্ত এই চাপ সামাল দিতে ২০২১ সালে এই সীমান্তে কড়াকড়ি আরোপ করে ট্রাম্প প্রশাসন। যদিও ক্ষমতায় এসে বাইডেন প্রশাসন সেই বিধিনিষেধ শীথিল করে। এবার রেকর্ড সংখ্যক অভিবাসী অবৈধভাবে সীমান্ত অতিক্রম করায় আগের প্রশাসনের মতো কঠোর সীমান্ত নীতি গ্রহণ করেছে বাইডেন প্রশাসন।

ক্যালিফোর্নিয়ার পাসাদেনায় নাইন্থ ইউএস সার্কিট কোর্ট অফ অ্যাপিলসের তিন বিচারকের একটি প্যানেল সরকারের একটি সিদ্ধান্তের অ্যাপিল শুনানি করেছে। এতে বলা হয়েছে, চলতি বছরের শুরুতে গঠিত নিয়মে ফেডারেল অভিবাসন আইন লঙ্ঘন করা হয়েছে। বাইডেন প্রশাসনের একজন আইনজীবী মঙ্গলবার জানিয়েছেন, তাদের একজন বিচারক ভুল করেছেন।

আমেরিকান সিভিল লিবার্টিজ ইউনিয়নের (এসিএলইউ) প্রতিনিধিত্বকারী অভিবাসী অ্যাডভোকেসি গ্রুপগুলো এই নিয়মের বিরুদ্ধে চ্যালেঞ্জ এনেছিল।

নীতিমালায় বলা হয়েছে, বেশিরভাগ অভিবাসী যদি অন্য দেশের মধ্য দিয়ে প্রবেশ করে অথবা তারা প্রবেশের নির্ধারিত সীমান্ত বন্দরে পৌঁছানোর পরিবর্তে অবৈধভাবে সীমান্ত অতিক্রম করে তাহলে তারা আশ্রয়ের জন্য আবেদন করার যোগ্য নয়। নাইন্থ সার্কিট বিচারকের রায় অগাস্ট মাসে স্থগিত করার মাধ্যমে অ্যাপিলের ফল ঘোষণা না হওয়া পর্যন্ত যোগ্য অভিবাসীদের প্রবেশে আইন কার্যকর থাকার অনুমতি দেয়।

ইউএস ডিপার্টমেন্ট অফ স্টেইটের ব্রায়ান বয়ন্টন মঙ্গলবার জানান, এই নিয়মটি বৈধ। কারণ অভিবাসীদের জন্য স্পষ্টভাবে আশ্রয়কে বাধা দেয়ার পরিবর্তে, তাদের যোগ্য হিসেবে নেয়ার জন্য বিভিন্ন শর্ত যুক্ত করে দেয়া হয়েছে।

বয়নটন বলেন, ‘এই নিয়মের অধীনে সেপ্টেম্বরের মধ্যে আবেদনকারী ১২ শতাংশ অভিবাসী আশ্রয়ের অনুমতি পেয়েছেন।’

এসইএলইউয়ের আইনজীবী স্পেন্সার আমদুর আদালতকে বলেছেন, অভিবাসন আইন লঙ্ঘন করা হচ্ছে। কোনো আইন না মেনেই অভিবাসীদের অধিকাংশকেই অ্যামেরিকায় প্রবেশে বাধা দেয়া হচ্ছে এবং তাদের আশ্রয়ের জন্য বিবেচনা করা হচ্ছে না।

ঘণ্টাব্যাপী শুনানির সময় বিচারকরা কোন পক্ষে ঝুঁকছিলেন তা এখনও স্পষ্ট নয়। তবে তাদের মধ্যে দুজন আইনজীবী উল্লেখ করেছেন, ফেডারেল অভিবাসন আইনে চূড়ান্তভাবে কারা আশ্রয় সুরক্ষা পাবে তা সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষেত্রে সরকারকে আরও কিছু প্রাসঙ্গিক কারণ বিবেচনা করতে হবে।

সার্কিট জাজ লরেন্স ভ্যানডাইক বলেন, ‘আশ্রয়ের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে যদি অ্যামেরিকায় প্রবেশের সঠিক পদ্ধতি অবলম্বন করা হয় তাহলে বিষয়টি পরিষ্কার হবে। কারণ কোনো অভিবাসী সীমান্তে বৈধ প্রবেশের আগে আশ্রয়ের আবেদন করতে পারবেন না।’

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন