সোমবার, ২০ মে ২০২৪

শিরোনাম

ওভারটাইম সুবিধা পাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের ৪ মিলিয়ন কর্মী

বুধবার, এপ্রিল ২৪, ২০২৪

প্রিন্ট করুন
ওভারটাইম
ওভারটাইম সুবিধা পাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের ৪ মিলিয়ন কর্মী

ইফতেখার ইসলাম: ওভারটাইমের জন্য যোগ্য হচ্ছেন মার্কিন যুক্তরাষ্টের বেতনভুক্ত আরও প্রায় ৪ মিলিয়নের অধিক কর্মী। আগামী জুলাই এবং ২০২৫ সালের জানুয়ারিতে ২ ধাপে এসব কর্মী ওভারটাইমের জন্য যোগ্য হবেন।

মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) মার্কিন শ্রম বিভাগ কর্তৃক প্রকাশিত এক চূড়ান্ত নিয়মের অধীনে বেতনভুক্ত কয়েক লক্ষ শ্রমিক শীঘ্রই ওভারটাইম বেতনের জন্য যোগ্যতা অর্জন করবেন বলে জানা গেছে।

নতুন নিয়মে বেতনভুক্ত কর্মীরা ২টি পর্যায়ে ওভারটাইমের জন্য যোগ্য হবেন। প্রথম পর্যায়ে ১ জুলাই থেকে বার্ষিক ৪৩ হাজার ৮৮৮ ডলার বা সপ্তাহে ৮৪৪ ডলার এবং ১ জানুয়ারি থেকে বার্ষিক ৫৮ হাজার ৬৫৬ ডলার বা সপ্তাহে ১ হাজার ১২৮ ডলারের কম আয়কারীদের এই ওভারটাইম সুবিধা পাবেন। বর্তমান থ্রেশহোল্ড (সর্বনিম্ন মজুরি) হলো বছরে ৩৫ হাজার ৫৬৮ ডলার বা প্রতি সপ্তাহে ৬৪৮ যা ২০১৯ সালে ট্রাম্প প্রশাসন নির্ধারণ করেছিলো।

মার্কিন শ্রম বিভাগের মতে, জানুয়ারিতে নিয়মটি সম্পূর্ণরূপে বাস্তবায়িত হলে প্রায় ৪ মিলিয়ন কর্মী ওভারটাইমের জন্য যোগ্যতা অর্জন করবে। প্রথম বছরে এই নিয়মের ফলে নিয়োগকর্তাদের কাছ থেকে কর্মীদের কাছে প্রায় ১.৫ বিলিয়ন ডলার আয় স্থানান্তর হবে।

ভারপ্রাপ্ত শ্রম সচিব জুলি সু এক বিবৃতিতে বলেন, অনেক সময় কর্মীরা যে সময় কাজ করেন এবং বিনিময়ে যে বেতন পান তা প্রতি ঘন্টা হিসেবের তুলনায়ও কম হয়। তারা আয়ের জন্য পরিবার থেকে দূরে থেকে কাজ করেও সঠিক অর্থ পাচ্ছেন না, যা অগ্রহণযোগ্য। এই নিয়মের মাধ্যমে শ্রমিকরা তাদের অতিরক্ত কাজের জন্য পর্যাপ্ত অর্থ পাবে।

অসন্তোষ ব্যবসায়ী সংগঠনগুলোর মাঝে

এদিকে ব্যবসায়ীরা নতুন এই নিয়মের বিরোধিতা করেতে পারেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। এর আগে ওবামা প্রশাসাশনের সময় থ্রেশহোল্ড (ন্যুনতম মজুরি) বাড়ানোর চেষ্টা করা হলেও ব্যবসায়ীদের বাধার মুখে পড়ে তা। এবারও ট্রেড অ্যাসোসিয়েশনগুলোর বাধার মুখে পড়ে এই নিয়ম। যার কারণে গত বছরের আগস্টে এই আইন বাস্তবায়নের কথা থাকলেও তা পিছিয়েছে প্রায় ৭ মাস।

কোয়ার্লস অ্যান্ড ব্র্যাডি নামের একটি আইন সংস্থার অংশীদার টেড হলিস বলেন, ন্যুনতম মজুরি এভাবে বাড়ানোর ফলে অনেক ছোট ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ক্ষতির সম্মুখীন হবে। অনেকে শ্রমিক ছাঁটাই করবেন, অনেকেই আবার মানিয়ে নিতে বাধ্য হবেন। আবার কিছু প্রতিষ্ঠান অসহায় হয়ে নিজেদের কার্ যক্রম গুঁটিয়ে নিতে হবে। ব্যবসায়ীরা এই পদক্ষেপের বিরোধিতা যে করবে তা স্পষ্টভাবে অনুমেয়।

ন্যাশনাল রেস্তোরাঁ অ্যাসোসিয়েশনের পাবলিক অ্যাফেয়ার্সের নির্বাহী ভাইস প্রেসিডেন্ট শন কেনেডি এক বিবৃতিতে বলেন, এই নিয়মটি ছোট রেস্তোরাঁর মালিকদের জন্য অপারেটিং খরচ ‘দ্রুত বৃদ্ধি’। অথচ এসব প্রতিষ্ঠান মেনুর দাম স্থিতিশীল রাখতে ‘মরিয়া চেষ্টা করছে’, কিন্তু এখন হয়তো তা সম্ভব হবে না।

তিনি বলেন, যেহেতু ডিওএল আঞ্চলিক ডেটার পরিবর্তে জাতীয় আয়ের ডেটার ওপর ভিত্তি করে একটি একপাক্ষিক নিয়ম তৈরি করেছে এটি দক্ষিণ এবং মধ্য-পশ্চিমের রেস্তোরাঁর মালিকদের ক্ষতিগ্রস্ত করবে।

অ্যাসোসিয়েটেড বিল্ডার্স অ্যান্ড কন্ট্রাক্টরস’র রেগুলেটরি লেবার অ্যান্ড স্টেট অ্যাফেয়ার্সের ভাইস প্রেসিডেন্ট বেন ব্রুবেক বলেন, এই নিয়ম পুরো নির্মাণ শিল্পকে ব্যাহত করবে। আমরা এর বিরুদ্ধেআইনগত পদক্ষেপ নিবো।

তিনি এক বিবৃতিতে বলেন, এই নিয়মটি কর্মকর্তাদের কর্মক্ষেত্রের সময়সূচি এবং সময় নির্ধারণে নমনীয়তাকে ব্যাপকভাবে সীমাবদ্ধ করবে। কর্মজীবনের অগ্রগতির সুযোগগুলোকেও ক্ষতিগ্রস্ত করবে।

অতীত যা বলছে

২০১৬ সালে তৎকালীন রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামা শ্রম বিভাগকে ফেডারেল ওভারটাইম নিয়মগুলো সংশোধন করতে এবং বেতন থ্রেশহোল্ড বছরে ৪৭ হাজার বা সপ্তাহে ৯১৩ ডলারে উন্নীত করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু ব্যবসায়ী সংগঠনগুলো এবং ২১টি রাজ্য সেই নিয়মের বিরুদ্ধে মামলা করে। পরে টেক্সাসের এক ফেডারেল বিচারক একটি নিষেধাজ্ঞা জারি করেন। ট্রাম্প প্রশাসন ২০১৭ সালে বলেছিল বর্তমান থ্রেশহোল্ড নির্ধারণ করে।

প্রসঙ্গত, ফেয়ার লেবার স্ট্যান্ডার্ড অ্যাক্ট’ অনুযায়ী সপ্তাহে ৪০ ঘণ্টা কাজের পর শ্রমিকরা প্রায় প্রতি ঘণ্টার জন্য ওভারটাইম পাওয়ার উপযুক্ত। তবে নির্দিষ্ট মাত্রার নিচে না থাকলে নির্বাহী, প্রশাসনিক বা পেশাদার ভূমিকায় থাকা বেতনভুক কর্মীরা তা পাবেন না।

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন