রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪

শিরোনাম

গর্ভপাত ক্লিনিকে গোপনীয়তা রক্ষায় বড় পদক্ষেপ গুগলের

শনিবার, জুলাই ২, ২০২২

প্রিন্ট করুন

চলমান নিউইয়র্ক প্রতিবেদন: গর্ভপাতকে গত সপ্তাহেই নিষিদ্ধ ঘোষণা করে রায় দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্ট। যার ফলে পাঁচ দশকের পুরনো আইনে এসেছে ঐতিহাসিক বদল। এ রায় নিয়ে আলোচনা চলছে সারা পৃথিবীতেই। এ পরিস্থিতিতে এবার পৃথিবীর প্রথম সার্চ ইঞ্জিন গুগল নতুন এক ঘোষণা দিয়েছে। সেই ঘোষণায় জানিয়ে দেয়া হয়েছে, গর্ভপাতের ক্লিনিকের মত স্থানে কোন ইউজার গেলে তার ব্যক্তিগত গোপনীয়তাকে মান্যতা দেবে গুগল। সে ক্ষেত্রে সেই ইউজারের লোকেশন হিস্ট্রি ডিলিট করে দেয়া হবে।

গুগল কর্তা জেন ফিটজপ্যাট্রিক একটি ব্লগে এ ব্যাপারে লিখেছেন, ‘যদি গুগল সিস্টেম জানতে পারে কোন ব্যক্তি গর্ভপাতের ক্লিনিকে গিয়েছেন, তাহলে লোকেশন ও হিস্ট্রি ডিলিট করে দেবে।’ সেই সাধে তিনি এও জানিয়েছেন, গুগল কোন প্রজনন কেন্দ্র, ওজন কমানোর ক্লিনিকের মত স্থানে কোন ইউজার গেলে সেই ডেটা সংরক্ষণ করে না।

গর্ভপাত নিয়ে গত ২৪ জুন প্রায় পাঁচ দশক পুরনো গর্ভপাত সংক্রান্ত আইন বাতিল করে দেয় যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্ট। আদালত সাফ জানায়, যুক্তরাষ্ট্রে গর্ভপাত সাংবিধানিক অধিকার নয়। ফলে মার্কিন মুলুকে প্রায় লাখ লাখ মহিলা ‘রাইট টু অ্যাবর্ট’ বা গর্ভপাতের আইনি অধিকার থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। তারপরই প্রতিবাদীদের ভিড় বাড়তে থাকে শীর্ষ আদালতের সামনে। শুধু আদালত চত্বর নয়, বিক্ষোভের ঢেউ ছড়িয়ে পড়েছে দেশের নানা প্রান্তেও। সুপ্রিম কোর্টের এ রায় নারী স্বাধীনতার বিরোধী বলে দাবি করেছেন বিক্ষোভকারীরা।

প্রতিবাদে শামিল হয়েছেন সেলেব্রিটি থেকে আমজনতা। কিন্তু এবার শীর্ষ আদালতের রায়ের বিরোধিতা করছে প্রাদেশিক আদালতগুলি। ফ্লোরিডা সার্কিট কোর্টের বিচারক জন কুপার জানিয়েছেন, গর্ভপাত সমর্থনকারী দলগুলোর কাছ থেকে পিটিশন চাওয়া হয়েছে। তার উপরে ভিত্তি করেই সাময়িকভাবে গর্ভপাতের উপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হবে।

তবে গর্ভাবস্থার ১৫ সপ্তাহ কেটে গেলে তবেই গর্ভপাতের অনুমতি দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন জন। কেন্টাকির বিচারপতির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ‘সাময়িকভাবে গর্ভপাতের উপর থেকে সব ধরনের নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হচ্ছে।’

সিএন/এমএ

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন