বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪

শিরোনাম

গ্যাস্ট্রিকের সমস্যায় যেসব খাবার এড়িয়ে চলা জরুরী

মঙ্গলবার, নভেম্বর ৭, ২০২৩

প্রিন্ট করুন

সাম্প্রতিক সময়ে প্রকট আকার ধারণ করেছে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা। খুব সাধারণ মনে করে এ সমস্যাটিকে এখন আর হেলায় উড়িয়ে দেওয়ার নেই কোন সুযোগ নেই। ব্যক্তিবেদে ক্ষেত্র বিশেষ এ গ্যাস্ট্রিক যে কতটা ভোগান্তির কারণ হতে পারে তা কেবল ভুক্তভোগীরাই বলতে পারবে। এ সমস্যাটা এড়াতে খাবার গ্রহণে থাকতে হবে সতর্ক। তাহলেই কেবল এ যন্ত্রণাদায়ক সমস্যার হাত থেকে মিলতে পারে পরিত্রাণ।

চলুন জেনে নেওয়া যাক কোন কোন খাবারগুলো এড়িয়ে চলা উচিত—

পপকর্ন
মুখরোচক খাবার হিসেবে পপকর্ণ সর্বজন সমাদৃত। এ খাবারটি পছন্দ করেন না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। তবে পপকর্ণে অতিমাত্রায় ফাইবার থাকায় এ খাবারটি কারো কারো ক্ষেত্রে হজমে ত্রুটির কারণ হতে পারে। যার ফলস্বরূপ, পেটে গ্যাস, পেট ফাঁপাসহ হতে পারে বুক জ্বালাপোড়া।

কাঁচা সবজি
আমরা অনেকেই স্বাস্থ্যকর খাবারের তালিকায় সালাদ হিসেবে অনেক সময় রাখি বিভিন্ন কাঁচা সবজি। কিন্তু আপনি কি জানেন, কাঁচা সবজিতে সালফার বা গন্ধকের যৌগ থাকে? যেকারণে কাঁচা সবজি দিয়ে তৈরি সালাদ খেলে ব্যক্তিবেদে গ্যাসের সমস্যা দেখা দিতে পারে।

চুইংগাম
আমরা অনেকেই মুখশুদ্ধি হিসেবে চুইংগাম মুখে পুরো চিবাতে থাকি। তবে এ বহুল প্রচলিত অভ্যাসটিও বদহজমের কারণ হতে পারে। চুইংগাম মুখে রেখে চিবোলে চুইংগামের মিষ্টতার সাথে অনেকটা বাতাসও আমাদের শরীরে প্রবেশ করে। যার ফলে গ্যাসের কারণে অস্বস্তি দেখা দিতে পারে।

পেঁয়াজ
সালাদ কিংবা রান্নার কাজে পেঁয়াজের ব্যবহার বহুল প্রচলিত। পেয়াজের এত প্রয়োজনীয়তা থাকলেও এর রয়েছে কিছু ক্ষতিকর দিকও। যেমন পেঁয়াজে থাকা কার্বোহাইড্রেড ফ্রুক্টন অনেকের শরীরই হজম করতে পারে না। মানুষের শরীরে প্রবেশের পর এই ফ্রুক্টন যখন ভাঙতে শুরু করে তখন পরিপাক পদ্ধতিতে গ্যাস তৈরি হয়। তাই পেঁয়াজ খেলে কারও কারও ক্ষেত্রে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দেখা দিতে পারে।

আপেল
আপেল স্বাস্থ্যকর একটি ফল হলেও এটি গ্যাস্ট্রিকের রোগীদের জন্য উপকারী নাও হতে পারে। এর কারণ হলো, আপেল, পিচের মতো ফলে ফ্রুক্টোজের মাত্রা খুব বেশি থাকে। এর প্রভাবে শরীরে গ্যাসের পরিমাণ বৃদ্ধি পেতে পারে। তাই গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা থাকলে আপেল এড়িয়ে যাওয়াই ভালো।

সিএন/এএইচ

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন