শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪

শিরোনাম

চট্টগ্রামের মেজবানেও কর বসাচ্ছে চসিক!

মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ১৩, ২০২২

প্রিন্ট করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক: বৃহত্তর চট্টগ্রাম অঞ্চলের বহুমাত্রিক ঐতিহ্যবাহী একটি ভোজ অনুষ্ঠানের নাম মেজবান। কারও মৃত্যুর পর কুলখানি, মৃত্যুবার্ষিকী, আকিকা, জন্মদিন, বিবাহ, খৎনাসহ নানা উপলক্ষে মেজবানির আয়োজন করে চট্টগ্রামবাসী। এছাড়া কোন নির্দিষ্ট উপলক্ষ ছাড়া এমনিতেই মেজবান আয়োজন করা চট্টগ্রামের একটি ঐতিহ্য। এবার এই আয়োজনে নজর দিয়েছে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক)। নগরে এমন আয়োজনে কর বসানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে এই সংস্থাটি। শুধু ভোজ নয়, নতুন করে ১৬ খাতে কর আদায়ের তালিকা করা হয়েছে।

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে নগরবাসীর জীবন যখন নাভিশ্বাস, তখন কয়েকগুণ বাড়িয়ে গৃহকর আদায় করছে চসিক। এ অবস্থায় নতুন নতুন খাতে কর আদায় করাটা হবে ‘মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা’। যদিও সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তাদের দাবি, এ ছাড়া তাঁদের আর কোনো উপায় নেই।

চসিকের ১৮তম সাধারণ সভায় রাজস্ব আদায়যোগ্য ২৬টি খাতে কর আদায়ের সিদ্ধান্ত হয়। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, একটি তালিকা তৈরি করে সিটি করপোরেশনের রাজস্ব বিভাগ। এর মধ্যে রয়েছে- জন্ম, বিয়ে, দত্তক গ্রহণ ও জেয়াফত বা ভোজের ওপর কর, ইমারত নির্মাণ ও পুনর্নির্মাণের জন্য আবেদনের ওপর কর, নগরীতে ভোগ, ব্যবহার বা বিক্রয়ের জন্য পণ্য আমদানির ওপর কর, নগর থেকে পণ্য রপ্তানির ওপর কর, নগরে চলাচলরত যানবাহন থেকে টোল, পশুর ওপর কর, জনসেবামূলক কার্য সম্পাদনের কর, পানি কল ও পানি সরবরাহ ব্যবস্থার জন্য কর, স্কুল ফি, বাজারের ওপর ফি, করপোরেশন থেকে লাইসেন্স, অনুমোদন ও অনুমতির ওপর ফি, করপোরেশনের কোনো বিশেষ কাজের জন্য ফি, আদর্শ কর তপশিলের আওতায় অনুমোদিত অন্য কোনো ফি ও সরকারের আইন বলে আরোপনীয় অন্য কোনো কর।

চসিকের অর্থ ও সংস্থাপনবিষয়ক স্থায়ী কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ ইসমাইল বলেন, সাধারণ সভায় যেসব খাতে কর আদায়ের সিদ্ধান্ত হয়েছে, সেসব খাতে করহার নির্ধারণে আগামী বৃহস্পতিবার কমিটির সভা ডাকা হয়েছে। সভায় করহার নির্ধারণ করা হবে। এমনভাবে কর নির্ধারণ করা হবে, যাতে মানুষের ওপর বোঝা না হয়।

সিএন/এমটি

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন