রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪

শিরোনাম

জন্মবিরতিকরণ পিলের পরিবর্তে ইমার্জেন্সি পিলে ব্যবহারে বাড়ছে স্বাস্থ্যঝুঁকি

শুক্রবার, অক্টোবর ৬, ২০২৩

প্রিন্ট করুন
পিল

পরিবার পরিকল্পনাকর্মী এবং স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অনেক নারী নিয়মিত জন্মবিরতিকরণ পিলের পরিবর্তে ইমার্জেন্সি পিলের দিকে ঝুঁকছেন। আর এই পিলের ভুল ব্যবহারের ফলে তাদের স্বাস্থ্যঝুঁকি বাড়ছে।

অবসটেট্রিক্যাল অ্যান্ড গাইনোকলজিক্যাল সোসাইটি অব বাংলাদেশের (ওজিএসবি) সাবেক সভাপতি অধ্যাপক ডা. ফেরদৌসী বেগম বলেন, ‘বেশ কয়েক বছর ধরেই দেশে ইমার্জেন্সি কন্ট্রাসেপটিভ পিলের ব্যবহার বাড়ছে। দেশে অযাচিত গর্ভধারণের হার অনেক বেশি। প্রতি তিনটির মধ্যে একটি অযাচিত গর্ভধারণের ঘটনা ঘটে। এ অবস্থায় ইমার্জেন্সি কন্ট্রাসেপটিভ পিলকে আমরা নিরুৎসাহিত করতে পারি না। তবে এই পিলের ব্যবহারে সচেতন হওয়া প্রয়োজন’।

কারণ পিলের ভুল ব্যবহার অনিয়মিত মাসিক, লিভারের সমস্যাসহ নানা ধরনের স্বাস্থ্যঝুঁকির কারণ হতে পারে। পরিবার পরিকল্পনা অধিদফতরের তথ্য অনুযায়ী, সরকারি ও বেসরকারিভাবে বাংলাদেশে বর্তমানে জন্মনিয়ন্ত্রণের জন্য ব্যবহৃত হয় কন্ট্রাসেপটিভ পিল, কনডম, দীর্ঘমেয়াদি পদ্ধতির ইনজেকশন, ইন্ট্রাইউটেরিন ডিভাইস (আইডি) বা কপার টি, ইমপ্ল্যান্ট, স্থায়ী পদ্ধতি ও ইমার্জেন্সি কন্ট্রাসেপটিভ পিল। এর মধ্যে অন্যান্য পদ্ধতির তুলনায় ইমার্জেন্সি পিলের ব্যবহার বাড়ছে বলে জানান পরিবার পরিকল্পনাকর্মীরা।

তবে এ-সংক্রান্ত বিশদ কোনো তথ্য সরকারি বা বেসরকারি কোনো প্রতিষ্ঠানের কাছেই পাওয়া যায়নি।

মেরী স্টোপস বাংলাদেশের লিড অ্যাডভোকেসি মনজুন নাহার বলেন, ‘ইমার্জেন্সি পিল কখনোই রেগুলার পিলের বিকল্প হতে পারে না। যখন-তখন এটা খেয়ে ফেলা ঠিক না। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যায়, কোনো চিকিৎসক বা স্বাস্থ্যকর্মীর পরামর্শ ছাড়া ফার্মেসি থেকে এগুলো কেনা হয়। ফার্মেসিতে যারা থাকেন, তারা যেন এই পিল সম্পর্কে সচেতনতা তৈরি করতে পারেন, তাদের সেই প্রশিক্ষণটা থাকা উচিত’।

আইআই/সিএন

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন