বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪

শিরোনাম

পেকুয়ায় পরিচ্ছন্নতা কর্মী কতৃক প্রধান শিক্ষককে হত্যার চেষ্টা

বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ২, ২০২৩

প্রিন্ট করুন

হুমায়ুন কবির, পেকুয়া, কক্সবাজার: কক্সবাজার জেলার ঐতিহ্যবাহী স্কুল পেকুয়া মডেল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জহির উদ্দিনকে ধারালো দা-বটি নিয়ে হত্যার চেষ্টার করেছেন স্কুলের পরিচ্ছন্নতা কর্মী হারুনর রশীদ (নাসির উদ্দিন)। বৃহস্পতিবার (২ নভেম্বর) দুপুরে পেকুয়া মডেল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের কক্ষে এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, নাসির উদ্দিন প্রধান শিক্ষক রুমে ঢুকে দরজা বন্ধ করেন। এরপর প্রধান শিক্ষককে অকথ্য ভাষায় গালাগালি করে। ধারালো বটি হত্যা করতে চাইলে জহির উদ্দিন হাত ধরে পেলেন, এক পর্যায়ে ধারালো বটি কেড়ে নিয়ে জানালা দিয়ে পেলে দেন ও ধাক্কা দিয়ে রুম থেকে বাহিরে চলে আসেন।

জহির উদ্দিন বলেন, ‘কিছু দিন আগে স্কুলের পরিচ্ছন্নতা কর্মী হারুনর রশীদ আমার টেবিল থেকে টাকা চুরি করেন। চুরির ঘটনা প্রমাণিত হওয়ায় কিছু দিন সে কারাগারে ছিল, এরপর আর করবে না বলে জানান। আজ দুপুরে হঠাৎ আমার কক্ষে ঢুকে দরজা বন্ধ করে দেয়। এরপর আমাকে হত্যার জন্য ধারালো দা-বটি বাহির করে। আমার মাথায় বটি দিয়ে কুপ দিতে চাইলে আমি হাত ধরি। এক পর্যায়ে আমি ধারালো বটি তার থেকে নিয়ে জানালা দিয়ে বাহিরে পেলে দিই। আমি দরজা খুলে কোনমতে প্রাণে বেঁচে বাহির হই। আমি পেকুয়া থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছি।’

পেকুয়া থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) মোহাম্মদ ইব্রাহিম বলেন, ‘লিখিত অভিযোগ পেয়ে, সিসিটিভির ফুটেজ দেখে আসামি হারুনর রশীদকে গ্রেফতার করা হয়েছে।’

গাজার শরণার্থী শিবিরে পুনরায় ইসরায়েলের হামলা ‘যুদ্ধাপরাধ’

রাফাহ, ফিলিস্তিনি অঞ্চল: নতুন করে বুধবার (১ নভেম্বর) গাজার বৃহত্তম শরণার্থী শিবিরে বিমান হামলা চালিয়ে বহু মানুষকে হতাহত করেছে ইসরায়েল, এতে জাতিসংঘের মানবাধিকার কর্মকর্তারা ইসরায়েলকে সতর্ক করে বলেছে, ‘ঘনবসতিপূর্ণ আবাসিক এলাকাগুলোকে লক্ষ্য করে এই হামলা ‘যুদ্ধাপরাধ হিসাবে গণ্য হতে পারে।’ খবর এএফপির।

জাবালিয়া শিবিরে দুই দিনের মধ্যে দ্বিতীয় দফায় বিমান হামলা চালায় ইসরায়েল, হামলায় ভবনগুলো সম্পূর্ণ ধ্বংস হয়ে গেছে।

হামাস পরিচালিত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের হিসাবে, এই হামলায় কয়েক ডজন লোকের মৃত্যু হয়েছে।এ নিয়ে জাবালিয়া শিবিরে ইসরায়েলি হামলায় ১৯৫ জন নিহত হয়েছে।

ঘটনাস্থলে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি দেখো গেছে, লোকজন উন্মত্তভাবে ধ্বংসস্তুপের মধ্য দিয়ে রক্তাক্ত হতাহতদের উদ্ধারের চেষ্টা চালাচ্ছে।

ইসরায়েল বলেছে, ‘তাদের যুদ্ধবিমানগুলো ‘হামাসের একটি কমান্ড ও নিয়ন্ত্রণ কমপ্লেক্স’ লক্ষ্য করে ও একটি অনির্ধারিত সংখ্যক জঙ্গিকে ‘নির্মূল’ করতে এই হামলা চালিয়েছে।’

উদ্ধারকারীরা বলেছেন, ‘হামলায় ‘পুরো পরিবার’ মারা গেছে। তবে, হতাহতের বিবরণ তাৎক্ষণিকভাবে নিশ্চিত করা যায়নি।

ইসরায়েলে হামাসের হামলার প্রতিশোধ নিতে গেল ৭ অক্টোবর থেকে ইসরায়েল গাজায় ১১  হাজারেরও বেশি লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত করেছে। অনেক দেশ হামাসের পাল্টা আঘাত করার ইসরায়েলের অধিকারকে সমর্থন করেছিল। কিন্তু, বেসামরিক লোকের সংখ্যা যেমন বেড়েছে, তেমনি ইসরায়েলি কৌশলের সমালোচনাও করেছে।

গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মতে, এ পর্যন্ত আ হাজার ৭৯৬ গাজাবাসীর মৃত্যু হয়েছে, যাদের বেশিরভাগই নারী ও শিশু। গাজার পুরো এলাকা মাটির সাথে মিশিয়ে দেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (৩১ অক্টোবর) ইসরায়েলি বাহিনী জাবালিয়া শিবিরে হামলা চালিয়েছে, এতে কমপক্ষে ৪৭ জনের মৃত্যু হয়েছে।

জাতিসংঘ ইসরায়েলের সাম্প্রতিকতম বোমা হামলার নিন্দা করেছে, বলিভিয়ার মত দূরের দেশ আন্তর্জাতিক নিন্দায় যোগ দিয়েছে ও প্রতিবাদে ইসরায়েলের সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করেছে।

জাতিসংঘের শীর্ষ মানবাধিকার সংস্থা ‘বেসামরিক হতাহতের উচ্চ সংখ্যা’ ও ধ্বংসের মাত্রা উল্লেখ করে ‘গুরুতর উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেছে, এগুলো অসম আক্রমণ যা যুদ্ধাপরাধের সমতুল্য বিবেচিত হতে পারে।’

‘গাজায় নিরপরাধ মানুষ হত্যাকারী ইসরায়েলি যুদ্ধের নিন্দা করে’ জর্ডান ইসরায়েলে তার রাষ্ট্রদূতকে প্রত্যাহার করেছে।

হামাস নেতা ইসমাইল হানিয়াহ ‘নিরস্ত্র বেসামরিকদের বিরুদ্ধে বর্বর গণহত্যার’ জন্য ইসরায়েলকে অভিযুক্ত করেছেন।

সিএন/এমএ

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন