সোমবার, ২০ মে ২০২৪

শিরোনাম

বছরের ব্যবধানে দেশে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত বেড়েছে দশ গুণ, মৃত্যু তিন গুণ

রবিবার, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০২৩

প্রিন্ট করুন

ঢাকা: ‘গেল বছরের থেকে এবার বাংলাদেশে ডেঙ্গু রোগের প্রকোপ দশ গুণ ও মৃত্যু প্রায় তিনগুণ বেড়েছে।’ ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব প্রিভেন্টিভ অ্যান্ড সোশ্যাল মেডিসিনের (এনআইপিএসএম) কীটতত্ত্ব বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডাক্তার মো. গোলাম ছারোয়ার বৃহস্পতিবার (১৪ সেপ্টেম্বর) ঢাকায় অনুষ্ঠিত এক সেমিনারে এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘২০২২ সালের সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি থেকে ২০২৩ সালের মাঝামাঝি সময়ে ডেঙ্গু পজিটিভ কেস দশ গুণ ও মৃত্যু তিন গুণ বেড়েছে।’

এশিয়াটিক সোসাইটি অব বাংলাদেশ ‘বাংলাদেশে ডেঙ্গু প্রতিরোধে এডিস মশা নিয়ন্ত্রণে চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক এই সেমিনারের আয়োজন করে। এতে বক্তব্য দেন ড. আরএ গনি ও মিসেস হোসনে আরা গণি ট্রাস্ট ফান্ড এবং এশিয়াটিক সোসাইটির চেয়ারপারসন অধ্যাপক একেএম আব্দুল হান্নান ভূঁইয়া।

মূল প্রবন্ধে ছারোয়ার ব্যাখ্যা করে বলেন, ‘বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধির সাথে সাথে আমাদের দেশের পরিবেশগত কারণগুলো যেমন তাপমাত্রা, আপেক্ষিক আর্দ্রতা ও বৃষ্টিপাত বাড়ছে। এগুলো এডিস মশার প্রজনন ক্ষমতা বৃদ্ধিতে মুখ্য ভূমিকা পালন করছে।’

তিনি বলেন, ‘এখানে অপরিকল্পিত নগরায়ণ, শিল্পায়ন ও আনুষঙ্গিক কর্মকান্ড, যেমন বহুতল ভবন নির্মাণ, জলপথ রুদ্ধ করা, পুরনো গাড়ি ডাম্পিংয়ের মাধ্যমে শহরগুলোকে মশার অভয়ারণ্যে পরিণত হয়েছে।’

ছারোয়ার বলেন, ‘সুতরাং, আমরা সব শ্রেণী ও পেশার মানুষ আজ অসহায় হয়ে পড়েছি। যেহেতু আমরা প্রজনন এলাকা ও মশার প্রজনন ক্ষমতা বৃদ্ধি করছি, কিন্তু সেভাবে আমরা কখনই এর প্রতিরোধ সম্পর্কে একইভাবে চিন্তা করছি না।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমাদের অজান্তে বিভিন্ন কর্মকান্ড ও এডিস মশার আকারগত, জৈবিক ও আচরণগত পরিবর্তন হওয়ার ফলে এই মশার প্রজনন বৃদ্ধির মাধ্যমে ডেঙ্গু ছড়ানোর জন্য অত্যন্ত অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে।’

ফলে, সারা দেশে অপ্রত্যাশিতভাবে ডেঙ্গু আক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় পুরো চিকিৎসা ব্যবস্থাই প্রচন্ড চাপের মধ্যে রয়েছে উল্লেখ করে ছারোয়ার বলেন, ‘দেশব্যাপী জরিপের মাধ্যমে এডিস মশার ঘনত্ব ও ডেঙ্গুর তীব্রতা পরীক্ষা করা খুবই জরুরি হয়ে পড়েছে।’

এই কীটতত্ত্ববিদ তার উপস্থাপনায় উল্লেখ করেন, একটি সাধারণ একক পদ্ধতির পরিবর্তে একটি সমন্বিত ভেক্টর ব্যবস্থাপনা বা আইভিএম পদ্ধতির প্রয়োজন। একইভাবে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে প্রতিবেশী দেশগুলো যেভাবে সফল হয়েছে আমাদের সেই ধারণা নিয়ে কাজ করতে হবে এবং সমরয়াপযোগী সিদ্ধান্ত নিয়ে জনগণের অংশগ্রহণ বাড়িয়ে ডেঙ্গু সমস্যা সমাধানে এগিয়ে যতে হবে।

ডিরেক্টরেট জেনারেল অব হেলথ সার্ভিসেস (ডিজিএইচএস) জানিয়েছে, শুক্রবার (১৫ সেপ্টেম্বর) পর্যন্ত বাংলাদেশে এক লাখ ৬১ হাজার ৯৬৪ জন ডেঙ্গু পজিটিভ ও ৭৯০ জন ডেঙ্গুতে মৃত্যুবরণ করেছে।

ডিজিএইচএসের এক তথ্যে বলা হয়েছে, ‘দেশে ২০০০ সালে ডেঙ্গু প্রাদুর্ভাব দেখা দেওয়ার পর থেকে এক মাসে সর্বোচ্চ আগস্টে ৭১ হাজার ৯৭৬ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছে, আর চলতি মাসে ৩৪২ জন ডেঙ্গুতে মৃত্যু হয়েছে।’

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, ২০০০ সালে ঢাকা শহরে ভেক্টরবাহিত রোগটি দেখা দেয়, পরবর্তী শুধুমাত্র ঢাকা শহরেই ডেঙ্গু পজিটিভ কেস শনাক্ত হয়।’

কিন্তু, ডেঙ্গু রোগটি তার প্রকৃতি পরিবর্তন করছে ও এটি ধীরে ধীরে সারা দেশে ছড়িয়ে পড়েছে উল্লেখ করে তারা বলেন, ‘দেশের ৬৪টি জেলায় ডেঙ্গু পজিটিভ কেস দেখা গেছে।’

ডিজিএইচএস জানিয়েছে, শুধুমাত্র জুলাই মাসে ৪৩ হাজার ৮৫৪জন ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছে ও এতে ২০৪ জন মারা গেছে। আর বৃহস্পতিবার (১৪ সেপ্টেম্বর) পর্যন্ত ৩৮ হাজার ১৫৬ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছে এবং একই সময়ে মশাবাহিত এই রোগে ১৯৭ জন মারা গেছে।

ডিজিএইচএসের তথ্য অনুসারে, বাংলাদেশে এক লাখ এক হাজার ৩৫৪জন ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছে, যা ২০০০ সালে ডেঙ্গু শনাক্ত হওয়ার পর দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। এছাড়া, ২০১৯ সালে এক হাজার ৪০৫জন, ২০২০ সালে ২৮ হাজার ৪২৯ জন ও ২০২২ সালে ৬২ হাজার ৩৮২জন ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছে।

এতে আরো বলা হয়েছে, ‘বাংলাদেশে ২০১৯ সালে ১৭৯ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে, ২০২০ সালে সাত জন, ২০২১ সালে ১০৫ জন এবং ২০২২ সালে ২৮১ জনের মৃত্যু হয়েছে, যা দ্বিতীয় সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড।’

সিএন/এমএ

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন