সোমবার, ২০ মে ২০২৪

শিরোনাম

যুক্তরাষ্ট্রের সাবমেরিন মোতায়েনের পর পারমাণবিক প্রতিক্রিয়ার হুমকি উত্তর কোরিয়ার

শুক্রবার, জুলাই ২১, ২০২৩

প্রিন্ট করুন

পিয়ংইয়ং, উত্তর কোরিয়া: উত্তর কোরিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রী কাং সান ন্যাম বৃহস্পতিবার (২০ জুলাই) বলেছেন, ‘দক্ষিণ কোরিয়ার বন্দরে যুক্তরাষ্ট্রের পরমাণু অস্ত্র বহনে সক্ষম সাবমেরিনের বর্তমান উপস্থিতির মাধ্যমে আইনি শর্ত পূরণ করায় পিয়ংইয়ং তার পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার করতে পারে।’

দুই কোরিয়ার মধ্যে সম্পর্ক তাদের সর্বকালের সর্বনিম্ন পর্যায়ে রয়েছে, কূটনীতি স্থবির হয়ে পড়েছে ও উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন কৌশলগত পারমাণবিক অস্ত্রসহ অন্যান্য অস্ত্রের উন্নয়নের আহ্বান জানিয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়া সামরিক শক্তি প্রদর্শন বৃদ্ধি করেছে ও ১৯৮১ সালের পর প্রথম বারের মত পরমাণু অস্ত্র বহনে সক্ষম যুক্তরাষ্ট্রের একটি সাবমেরিন এ সপ্তাহে দক্ষিণ কোরিয়ার একটি বন্দর ভিড়েছে।

কাং সান ন্যাম বলেছেন, ‘মার্কিন ওহাইও-শ্রেণীর সাবমেরিনের বুসান বন্দরে আগমন ‘পরমাণু শক্তি নীতি সম্পর্কিত উত্তর কোরিয়ার আইনে নির্দিষ্ট পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহারের শর্তের মধ্যে পড়তে পারে।’ উত্তর কোরিয়ার এক কর্মকর্তা তার নাম প্রকাশ না করার শর্তে এ কথা জানান।

উত্তর কোরিয়া গেল বছর একটি সুস্পষ্ট পারমাণবিক আইন গ্রহণ করেছে, এমন পরিস্থিতির একটি বিন্যাস তৈরি করেছে; যেখানে হুমকি দেয়া হলে আগাম প্রতিপক্ষের অবস্থানে প্রথম হামলাসহ তার কৌশলগত পরমাণু অস্ত্র ব্যবহার করতে পারে।

কাং সান ন্যাম বলেছেন, ‘সাবমেরিনটির উপস্থিতি ডিপিআরকের জন্য একটি প্রচ্ছন্ন ও সরাসরি পারমাণবিক হুমকি’ এবং এর অর্থ হল ‘প্রায় ৪০ বছর পরে প্রথম বারের মত কোরীয় উপদ্বীপে কৌশলগত পারমাণবিক অস্ত্র মোতায়েন করা হয়েছে।’

‘যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক পক্ষের বুঝতে হবে যে, তাদের পারমাণবিক সম্পদগুলি অত্যন্ত বিপজ্জনক জলসীমায় প্রবেশ করেছে।’ তিনি সরকারি কোরিয়ান সেন্ট্রাল নিউজ এজেন্সি প্রচারিত বিবৃতিতে এ কথা বলেছেন।

দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট ইউন সুক ইওল বুধবার (১৯ জুলাই) ওহাইও-শ্রেণীর সাবমেরিন পরিদর্শন করেছেন এবং উত্তর কোরিয়াকে সতর্ক করেছেন যে, দক্ষিণের বিরুদ্ধে পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার করা হলে, ‘এটি তার শাসনের পতনের দিকে নিয়ে যাবে।’

ওহাইও-শ্রেণির সাবমেরিন ২০টি ট্রাইডেন্ট-২ ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র বহন করতে পারে। যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনী সাধারণত নিশ্চিত করে না যে, সাবমেরিন সমুদ্রে যাওয়ার আগে পারমাণবিক অস্ত্র বহন করছে কিনা।

উত্তর কোরিয়ার যে কোন পারমাণবিক হামলার বিরুদ্ধে তাদের যৌথ প্রতিক্রিয়া উন্নত করতে মিত্ররা মঙ্গলবার (১৮ জুলাই) দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানী সিউলে তাদের প্রথম পারমাণবিক পরামর্শদাতা গোষ্ঠীর সাথে বৈঠক করেছে।

সিএন/এমএ

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন