সোমবার, ২০ মে ২০২৪

শিরোনাম

যুক্তরাষ্ট্র থেকে যেসব সামরিক সহায়তা পাচ্ছে ইসরায়েল

সোমবার, এপ্রিল ৮, ২০২৪

প্রিন্ট করুন
প্রতিবেশী উজবেকিস্তানে আফগান বিমান বিধ্বস্ত 1
প্রতিবেশী উজবেকিস্তানে আফগান বিমান বিধ্বস্ত 1

সিএন প্রতিবেদন: ২০১৬ সালে মার্কিন এবং ইসরায়েলি সরকার তৃতীয়বারের মতো ১০ বছর মেয়াদি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে। এই চুক্তির অধীনে ২০১৮ সালের ১ অক্টোবর থেকে ২০২৮ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত—এই ১০ বছরে যুক্তরাষ্ট্র ইসরায়েলকে মোট ৩৮০০ কোটি ডলারের সামরিক সহায়তা দেবে। এর মধ্যে সামরিক সরঞ্জাম কেনার জন্য ৩৩০০ কোটি ডলার এবং ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার জন্য থাকবে ৫০০ কোটি ডলার।

যেসব উন্নত অস্ত্র পাবে ইসরায়েল: প্রযুক্তিগতভাবে এখন পর্যন্ত তৈরি সবচেয়ে উন্নত ফাইটার জেট হিসেবে ধরা হয় এফ-৩৫ জয়েন্ট স্ট্রাইক ফাইটারকে। এই যুদ্ধবিমান আন্তর্জাতিকভাবে প্রথম ব্যবহার করেছে ইসরায়েল। ৭৫টি এফ-৩৫ জয়েন্ট স্ট্রাইক ফাইটার কিনতে যাচ্ছে ইসরায়েল। গত বছরও এই ধরনের ৩৬টি যুদ্ধবিমান কিনেছিল তারা। আর মার্কিন সহায়তা থেকেই এসবের টাকা পরিশোধ করেছে ইসরায়েল।

২০০৬ সালে ইসরায়েল এবং লেবাননভিত্তিক সশস্ত্র গোষ্ঠী হিজবুল্লাহর মধ্যে যুদ্ধের পর স্বল্প পরিসরের আয়রন ডোম রকেট প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার বিকাশ ও অস্ত্র তৈরিতে ইসরায়েলকে সহায়তা করেছে যুক্তরাষ্ট্র। ইসরায়েলকে তার ক্ষেপণাস্ত্র বিধ্বংসী প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা গড়তে তুলতেও বেশ কয়েকবার মিলিয়ন ডলার দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

১০০ থেকে ২০০ কিলোমিটার (৬২ মাইল থেকে ১২৪ মাইল) দূরে ছোড়া রকেটকে গুলি করার জন্য তৈরি সামরিক ব্যবস্থা হচ্ছে ডেভিড’স স্লিং সিস্টেম। এই ব্যবস্থার উন্নয়নেও অর্থ সহায়তা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

হামাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র থেকে ইসরায়েল আরও সামরিক সহায়তা পাবে কিনা তা নিয়েও চলছে আলোচনা। মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন গত বছর কংগ্রেসকে সাড়ে ৯ হাজার কোটি ডলারের সম্পূরক ব্যয় বিল অনুমোদন করতে বলেছিলেন। এই বিলের মধ্যে ইসরায়েলের জন্য ১৪০০ কোটি, ইউক্রেনের জন্য ৬০০ কোটি ডলার অন্তর্ভুক্ত ছিল।

গাজার বেসামরিক নাগরিক হত্যা বন্ধে নেতানিয়াহুকে বাইডেনের আল্টিমেটাম গাজার বেসামরিক নাগরিক হত্যা বন্ধে নেতানিয়াহুকে বাইডেনের আলটিমেটাম
গত ফেব্রুয়ারিতে বিলটি সিনেটে ৭০ শতাংশ সমর্থন পেলেও আটকে গেছে নিম্নকক্ষ হাউস অব রিপ্রেজেনটেটিভসে। রিপাবলিকান আইন প্রণেতাদের ইউক্রেনে সহায়তা দেওয়ায় আপত্তির কারণেই মূলত বিলটি আটকে গেছে।

গাজায় ইসরায়েলের গণহত্যায় এ পর্যন্ত নিহতের সংখ্যা ছাড়িয়ে গেছে ৩৩ হাজার। এ অবস্থায় মুষ্টিমেয় বামঘেঁষা ডেমোক্র্যাটদের প্রবল আপত্তির মুখে ইসরায়েলে আরও সামরিক সহায়তা দেওয়ার ব্যাপারে শর্ত আরোপে বাধ্য হয় বাইডেন প্রশাসন।

সিএন/এমটি

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন