শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪

শিরোনাম

সরকার হটাতে রাজপথ দখলের প্রস্তুতি বিএনপির

শুক্রবার, আগস্ট ১২, ২০২২

প্রিন্ট করুন


চলমান নিউইয়র্ক ডেস্ক :
 সরকার হটাতে নেতা-কর্মীদের নিয়ে রাজপথ দখলের প্রস্তুতি নিচ্ছে বিএনপি। বৃহস্পতিবার এক সমাবেশে দলটির নেতারা বলেছেন, সংগ্রাম শুরু হয়েছে, লড়াই শুরু হয়েছে, যুদ্ধ শুরু হয়েছে, এটা বেঁচে থাকার লড়াই, এটা বাংলাদেশকে রক্ষা করার লড়াই। আর এই সংগ্রামে অবশ্যই আমাদের শরিক হতে হবে, আমাদের ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে, রাজপথ আমাদেরকে দখল নিতে হবে। এবার রাজপথেই সব কিছুর ফয়সালা হবে। বৃহস্পতিবার বিকালে নয়া পল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সমাবেশে বিএনপি নেতারা এসব কথা বলেন। জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধিসহ দ্রব্যমূল্যের ঊধর্বগতির প্রতিবাদে ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিনের উদ্যোগে এই সমাবেশে হয়।

সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তেব্যে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, রাজপথের লড়াইয়ের মধ্য দিয়ে আমরা অবশ্যই এই ফ্যাসিস্ট দানবীয় হাসিনা সরকারকে সরিয়ে সত্যিকার অর্থেই আমরা একটা জনগনের সরকার, জনগনের রাষ্ট্র, জনগনের একটা সমাজ তৈরি করবো। খুব পরিস্কার করে বলতে চাই, আর কাল বিলম্ব না করে অবিলম্বে পদত্যাগ করুন। কারণ আপনারা ব্যর্থ হয়েছেন আপনারা মানুষের সমস্যা সমাধান করতে পারছেন না। সুতরাং আপনাদেরকে এই মুহুর্তে পদত্যাগ করে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে হবে।

আগামী ২২ আগস্ট থেকে সারা দেশে উপজেলা-জেলা-মহানগর পর্যয়ে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিলের কর্মসূচি অব্যাহতভাবে চলবে বলে ঘোষণা করেন তিনি। রোববার জেলা পর্যায়ে সমাবেশ আছে। সেই সমাবেশগুলো আমরা করব। এরপর আগামী ২২ তারিখ থেকে সকল উপজেলা ও গ্রাম পর্যায়ে আমরা ছড়িয়ে পড়ব এবং সেই একই ভাবে প্রত্যেকটি উপজেলা, জেলায় ও মহানগরে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল মধ্য দিয়ে শান্তিপূর্ণভাবে জনতার ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মধ্য দিয়ে আমরা এই সরকারকে অবশ্যই পদত্যাগ করে একটি নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে বাধ্য করব ইনশাল্লাহ।

সমাবেশের ব্যানারে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বড় ছবির পাশপাশি জিয়াউর রহমানের ছবিও ছিল। নয়া পল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে পাঁচটি ট্রাককে একত্রিত করে উন্মুক্ত মঞ্চ নির্মাণ করা হয়। দুপুর ২টায় শুরু হয়ে সমাবেশ শেষ হয় বিকাল ৬ টার পর। ফকিপুলের মোড় থেকে কাকারাইল পর্যন্ত পুরো সড়ক ও ফুনপাতের হাজার হাজার নেতা-কর্মীর উপস্থিতিতে সমাবেশটি জনসমুদ্রে পরিণত হয়। তার কারেণে কাকরাইল, শান্তিনগর,মালিবাগ, পুরানা পল্টন, আারামবাগসড়কসহ তার অলি-গলিতে ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়। এদিকে সমাবেশ চলাকালে পল্টন পলওয়েল ও চায়না টাউন মার্কেট বরাবর আকাশে কয়েকটি ড্রোন উড়তে দেখা গেছে। যদিও কে বা কারা এ ড্রোন ওড়িয়েছে তা জানা যায়নি।

সমাবেশ উপলক্ষে নয়া পল্টনের সড়কের বিভিন্ন স্থানে ব্যাপক ও সাদা পোষাকের সদস্যদের মোতায়েন করা হয়। সর্বশেষ ২০২১ সালের ৩০ নভেম্বর নয়া পল্টনের সামনে দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে বিদেশে পাঠানোর দাবিতে বিএনপি সমাবেশ করেছিল।

এফআইটি/সিএন

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন